Category: Homeo

মেটিরিয়া মেডিকা, ঔষধের শক্তি নির্বাচন এবং মায়াজম সম্বন্ধে কয়েকটি উপদেশ

★ যখন যে বইয়ের নাম শুনবে — কেনার জন্য ব্যস্ত হওয়ার কোন প্রয়োজন নেই। বেশীরভাগ বই বাজে, মিসগাইড করবে , ★ মেটিরিয়া মেডিকার একটি ঔষধ কোন বইয়ে 15 পৃষ্ঠা, 20 পৃষ্ঠা করে, অর্থাৎ প্রচুর লেখা আছে। তা থেকে ঔষধের আসল চরিত্রটি হৃদয়াঙ্গম করা যায় না । একটি ঔষধকে 10, 15 লাইনের মধ্যে হৃদয়াঙ্গম করা যায়

চেম্বার চিকিৎসক তৈরীর জন্য, শুধু রোগী দেখার জন্য নয়”

১৯৯৩ সাল নতুন চেম্বার শুরু করি, চেম্বার শুরু করার পর রোগী আসতে শুরু করলো, রোগীর সাথে কথা বলি, রোগীলিপি করি কিন্তু ঔষধ বাছাই করতে পারছিনা। তখন বিভিন্ন ডাক্তারের কাছে শেখার জন্য যেতে শুরু করলাম। তখন অনেক দূরে দূরে ডাক্তারের সাথে দেখা করার জন্য যেতাম। যেয়েতো লাভ হতো না, কেন জানেন! বন্ধ দরজা, চেম্বারের নয় ডাক্তারের

মাদার টিংচার এর ব্যবহার প্রসঙ্গে আলোচনা

মাদার টিংচার ★ মাদার টিংচার কি হোমিওপ্যাথিক ঔষধ? ★ মাদার টিংচার কি ব্যবহার করা যায়, বা করা উচিত? ★মাদার টিংচার ব্যবহার করা কি খুবই অপরাধ? ★ মাদার টিংচারে কি রোগ সারে? এই ধরনের প্রশ্ন গুলি প্রায়ই ওঠে, এবং ফেসবুকেও দেখি প্রায়ই আলোচনা হয়৷ এ প্রসঙ্গে আমার বক্তব্য– মাদার টিংচার অবশ্যই হোমিওপ্যাথিক ঔষধ। কারণ এই ঔষধ

ডাঃ নরেন্দ্রনাথ বন্দোপাধ্যয় ও তার বই ” ঔষধ পরিচয় “

আমি উত্তর কলকাতার শহরতলী বেলঘরিয়াতে বসবাস করি। আনন্দের কথা- ডাঃ নরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়ও বেলঘরিয়াতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি বেলঘরিয়াতে বিদ্যালয়ের পাঠ শেষ করে কলকাতায় যান এবং তখনকার দিনের হোমিওপ্যাথি কোর্স সম্পন্ন করেন। এরপর তিনি তার পিতার নামে একটি হোমিওপ্যাথিক কলেজ স্থাপন করেছিলেন এবং ডাঃ নীলমনি ঘটককে ঐ কলেজের অধ্যক্ষ নিযুক্ত করেছিলেন। তিনি নিজেও ঐ কলেজে মেটিরিয়া মেডিকা

ডাঃ হাসান মির্জা এর চিকিৎসার কিছু টেকনিক।

ডাঃ হাসান মির্জার কাছে ১৯৮২, ৮৩ সালে কিছুদিন গিয়েছিলাম। কিন্তু ঐ একই সময়ে শেখার জন্য ডাঃ এস পি দে, ডাঃ জে এন কাঞ্জিলাল, প্রমুখদের কাছে প্রত্যহ যেতাম বলে তার কাছে আর যেতে চাই নি, কারন, সত্যি কথা বলতে কি, আমরা কলেজে যা শিখেছিলাম, গুছিয়ে কেস টেকিং করে রোগী দেখা- Present Complaints, Past History, Personal History,

ডাঃ হাসান মির্জা সম্পর্কে আলোচনা

বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন জুনিয়র হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক আমাকে বেশ কয়েকবার বালীর হাসান ডাক্তার সম্বন্ধে লিখতে অনুরোধ করেছিলেন, তাই আজ লিখতে বসলাম। তার পুরো নাম হাসান মির্জা, তিনি কোন অথেনটিক হোমিওপ্যাথিক কলেজে পড়েন নি , কিন্তু আগে পশ্চিমবঙ্গের হোমিওপ্যাথিক কাউন্সিল হোমিওপ্যাথিক প্র্যাকটিসনার্সদের একটা মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন নাম্বার দিতেন, ঐ পদ্ধতিতেই তিনি একজন রেজিস্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ছিলেন।

হোমিওপ্যাথির উন্নয়নে আমার কিছু চিন্তা ভাবনা :-

প্রথমেই আত্মম্বরিতা ত্যাগ করে করে সবাই এক কাতারে আসতে হবে। HMB,DHMS এবং BHMS দের মধ্যে আন্তঃ কোন্দল, অহংকার দূর করতে হবে। DHMS কোর্স চালু হয়েছিল HMB পাস করা শিক্ষকগণ দ্ধারা। BHMS কোর্স চালু হয়েছিল DHMS পাস করা শিক্ষকগণ দ্ধারা। DHMS চিকিৎসক দের মধ্যে যেমন সবাই ভাল মানের নয়,তেমনি সকল BHMS চিকিৎসক গনও মানসম্পন্ন নয়। ভবিষ্যতে

আর্সেনিক আলবাম সম্বন্ধে কয়েকটি কথা

করোনা ভাইরাস উপদ্রব সহ সব ধরনের মহামারী, ডেঙ্গু, SARS (মারাত্মক তীব্র শ্বাসপ্রশ্বাস সিন্ড্রোম), Prophylaxis (প্রতিষেধক)এর জন্য —আর্সেনিক অ্যালবাম- 200, বাঞ্ছনীয় আজ যে আর্সেনিক এ্যালবাম ৩০, কেনার জন্য হাজার হাজার লাখো লাখো মানুষ ঘুরছে, দৌড়াচ্ছে, এই সূক্ষ্ম, ডাইনামিক আর্সেনিক ঔষধটি কিন্তু হ্যানিমান ক্রুড আর্সেনিক থেকে তৈরি করেছিলেন এবং প্রুভিং করেছিলেন ১৮০৫ সালের আগেই, কিন্তু ১৮০৫ সালে

প্যাথলজি ও হোমিওপ্যাথি

হোমিওপ্যাথিতে প্যাথলজীর কোন প্রয়োজন আছে কি? এ প্রসঙ্গে জানাই—- শরীরেন নর্মাল ফাংশান = ফিজিওলজী, এ্যাবনর্মাল ফাংশন = প্যাথলজী, তাই আমাদের সবাইকে শরীরের নর্মাল, এবং এ্যাবনর্মাল দুইরকম ফাংশনই জানার দরকার, ★প্যাথলজি জানলে আমরা শরীরের কোন অর্গান কি পজিসনে আছে তা জানতে পারবো, ★রোগটি আরোগ্যের মধ্যে, না আরোগ্যের বাইরে, তা জানতে পারবো, ★আরোগ্যের মধ্যে হলে, ঔষধে সারবে,

হোমিওপ্যাথিতে থেরাপিউটিকস বই পড়া বা শিখা

এখনই অনেকে বলতে পারে– স্যার, আপনি থেরাপিউটিকস জাতীয় বইগুলি বেশী পড়তে বারণ করেন, বা পছন্দ করেন না, অথচ অনেক থেরাপিউটিকস বইয়ের কথা বলছেন, ছবি দিচ্ছেন, তাহলে ব্যাপারটা কন্ট্রাডিক্টরি হচ্ছে না? উত্তর —–যে কোনো রোগ ও তার ঔষধ নিয়ে আলোচনা করা বইয়ের নামই হলো থেরাপিউটিকস, এসেছে ল্যাটিন শব্দ থেরাপ্-টিকস থেকে। যাই হোক— হোমিওপ্যাথি যেহেতু রোগের চিকিৎসা