Arsenic Album (আর্সেনিক অ্যালবাম): গুরুত্বপূর্ণ রুব্রিকসহ

১৯। আর্সেনিক অ্যালবাম (Arsenic Album) DHMS ( 1st year).
♣ সমনামঃ সেঁকোবিষ, হোয়াইট অক্সাইড অফ আর্সেনিক, সাদা আর্সেনিক।
♣ মায়াজমঃ সোরিক, সাইকোটিক, সিফিলিটিক, টিউবারকুলার।
♣ সাইডঃ ডানপাশ, ওপরে বামপাশ নিচে ডানপাশ।
♣ কাতরতাঃ শীতকাতর।
♣ উপযোগিতাঃ জৈব উত্তাপের অভাব, অত্যন্ত অবসন্নতা, সাথে জীবনীশক্তির দ্রুত ক্ষয়, মূর্ছা। এরূপ প্রকৃতির ঃ (ক) অবসাদ, বিষণ্ন, হতাশ ও উদাসীন। (খ) উদ্বেগ, ভীত, অস্হির, বিরক্তিপূর্ণ।
(গ) খিটখিটে, অনুভূতিপ্রবণ, অল্পেই বিরক্তি, অল্পেই রাগ। যন্ত্রণা যতো বাড়ে, উদ্বেগ, অস্হিরতা ও মৃত্যুভয় ততোই বাড়তে থাকে। মানসিকভাবে, অস্হির কিন্তু শারীরিকভাবে এতোই দুর্বল যে নড়াচড়া করতে পারে না। শুধুই জায়গা পরিবর্তন করতে থাকে। এক বিছনা থেকে অন্য বিছানায় যেতে চায়, একবার এখানে আর একবার সেখানে শুতে চায়- এ প্রকৃতির লোকদের পক্ষে উপযোগী।
♣ ক্রিয়াস্থলঃ প্রায় সকল বিধান, বিধানতন্ত ও শারীরিক নিঃস্রাবেই আর্সেনিকের ক্রিয়া দর্শে।
♣ বৈশিষ্ট্যঃ আর্সেনিকের বিষক্রিয়ায় রক্ত পরিবর্তিত হয়। সুতরাং রক্তের উৎকট পরিবর্তন বিশিষ্ট জীবনীশক্তি নিস্তেজভাব লক্ষণে এ ওষুধ উপকারী।
♣ সারসংক্ষেপঃ জৈব উত্তাপের অভাব, অত্যন্ত অবসন্নতা সেই সাথে জীবনীশক্তির দ্রুত ক্ষয়। মানসিকভাবে অস্হির ও শারীরিকভাবে দুর্বল। প্রদাহ, জ্বালাকর ব্যথা ও দুর্গন্ধ। উত্তাপের ঝলকাবোধ: যেনো গরম পানি ঢালছে এরূপ, শীত শীতভাবের সাথের পর্যায়ক্রমে। রাতে, মধ্য রাতের আগে ও পরে, ঠাণ্ডা লাগালে, দৈহিক পরিশ্রমে, ঠাণ্ডা খাদ্যে, ফলে, ঘুমের আগে, শুরুতে ও সময়ে বাড়ে। খোলা বাতাসে, গরম পানাহারে, তামাকে, বিছানায় শুলে, দাঁড়ালে ও গরমে প্রয়োগে কমে। স্বার্থপর, সন্দেহবাতিক ও খুঁতখুতে স্বভাব। ভর্ৎসনা করে: অপরকে, ছিদ্রাম্বেষী, লোকসঙ্গ বিতৃষ্ণা ও ভয়: একাকী থাকলে বৃদ্ধি, প্রলাপ ও ভ্রান্ত বিশ্বাস, স্মৃতিশক্তির দুর্বলতা। প্রবল পিপাসা সত্ত্বেও ক্ষণে ক্ষণে স্বল্প পানি পান এবং পানিপান মাত্রই বমা। রাত ১টা থেকে ২টা অথবা দুপুর ১টা থেকে ২টা পর্যন্ত শীতবিহিন জ্বর। পর্যাবৃত্তি
♣ অনুভূতিঃ উত্তাপের ঝলকাবোধ ; যেনো গরম পানি ঢালছে এরূপ, শীত শীতভাবের সাথে পর্যায়ক্রমে, শীত শীতভাবসহ। উত্তাপের অনুভূতিঃ রক্তবহা নালিগুলোতে।
♣ ক্রম ও সহচর লক্ষণঃ ১) এমন বাতিক যেনো সে চায় তাকে কেউ ধরে রাখুক।
২) রাত ১টা থেকে ২টা অথবা দুপুর ১টা থেকে ২টা পর্যন্ত শীতবিহীন জ্বর।
৩) পর্যাবৃত্তি : বছরান্তর, ১৪ দিন অন্তর।
♣ < বৃদ্ধিঃ A= রাতে, মধ্যারাতের আগে ও পরে, মদ জাতীয় উত্তেজক পদার্থে, ওপর দিকে ওঠতে, উত্তাপে, সাধারণভাবে ঠান্ডায়, ঠান্ডা বাতাসে, ঠান্ডা লাগালে, ঠান্ডা লাগালে পরে, ঠান্ডা স্থানে প্রবেশ করলে, আর্দ্র আবহাওয়ায়, আহারের পরে, দৈহিক পরিশ্রমে, ঠান্ডা খাদ্যে, ফলে, শুয়ে থাকলে, সঞ্চালন আরম্ভের পরে, দৌড়ালে, বসাবস্হায়, ঘুমের আগে, শুরুতে ও সময়ে, অনাচ্ছাদনে, পোশাক ছাড়লে, বমিতে, ঘুম থেকে জাগরণে ও মুক্তবাতাসে।
♣ > হ্রাসঃ খোলা বাতাসে, গোসলে, আক্রান্ত অঙ্গে পানি দিলে, অবস্হান পরিবর্তনে, পেট ভরে আহারে, কফিপানে, গরম খাদ্যে, গরম পানীয়ে, শুয়ে থাকার পর, বিছানায় শুলে, এক পাশে চেপে শুলে, সঞ্চালনে, মর্দনে, ঘুমের পরে, তামাকে, স্পর্শে, দাঁড়ালে, উনুনের গরমে, গরম প্রয়োগে, সমালোচনায়, ঘামে, উচুঁমাথায় শয়নে।
♣ কারণঃ ঠান্ডা ফল, নষ্ট মাংস ভক্ষণ, মদপান, তামাক, সমুদ্র স্নান, শব ব্যবচ্ছেদ কালীন, পোকা-মাকড়ের দংশন, বরফ, কুইনাইন এবং আয়োডিনের অপব্যহার, পর্বতারোহণ, শোক-দুঃখ, কান্না, টোমেইন বিষক্রিয়া, সবজির ডায়েট।
♣ ইচ্ছাঃ গরম পানীয়ে / খাদ্য, কফি, মদ, দুধ, ফল, সবজি, টক জিনিস খাবার প্রবল ইচ্ছে, উগ্রদ্রব্য।
♣ অনিচ্ছাঃ মাখন ও রান্না মাংস, ছাতু, মিষ্টি।
♣ অসহ্যঃ কুলপি বরফ, ফল, বাসি মাংস, মাছ এবং কড়া পনিরে যাদের সংচেত্যতা বা এলার্জি। অধিক পানি পান।
♣ ক্রিয়ানাশকঃ কার্বো-ভে, চায়না, ফেরাম, গ্র্যাফ, হিপার, আয়োড, ইপি, ল্যাকে, মার্ক, নাক্স-ভ, ফস, স্যাম্বু, স্টিকনি, ট্যাবে, ভিরেট।
♣ এটি ক্রিয়ানাশকঃ কার্বো-ভে, চায়না, ফেরাম, গ্র্যাফ, হিপার, আয়োড, ইপি, ল্যাকে, মার্ক, নাক্স-ভ, ফস, স্যাম্বু, স্টিকনি, ট্যাবে, ভিরেট।
♣ সতর্কীকরণঃ যতোক্ষণ আপনি আর্সেনিক নির্বাচন সম্বন্ধে নিশ্চিত না হন, ততোক্ষণ আর্সেনিকের যে কোনো শক্তি কখনো ব্যবহার করবেন না।—- ডা. ঘটক।
♣ প্রয়োগঃ পাকাশয়, অন্ত্ররোগে- নিম্নশক্তি,
স্নায়ুবিকারজাত রোগ ও চর্মরোগে- উচ্চশক্তি,
অধিকংশ ক্ষেত্রে– উচ্চশক্তিতে সুন্দর ফল দেয়।
= উপরোক্ত লক্ষণ সাদৃশ্যে যে কোন রোগেই আমরা আর্সেনিক প্রয়োগ করতে পারবো।

গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি রুব্রিকঃ
১) ক্রোধের পরবর্তী উৎকন্ঠাসহ পীড়া- A= অ্যাকোন, আর্স, ইগ্নে। B= বেল, ক্যামো, কুপ্রা, ওপি, প্লাটি, পালস
২.১) উৎকন্ঠা: বিবেক দংশনে – A= অ্যালু, আর্স, অরাম, চেলিডো, ডিজি, সোরিন।
২.২) উৎকন্ঠা : ভয়ের সাথে- A= অ্যাকোন, অ্যানাকা, আর্স, কস্টি, ইগ্নে, সোরিন, সিকেলি।
২.৩) উৎকণ্ঠা: আত্মার মুক্তির সম্বন্ধে -A= আর্স, ল্যাকে, লিলি-টা, ভিরেট।
৩) ছিদ্রাম্বেষী (Censorious )/দোষদর্শী/সমালোচনাপ্রবণ (Critical)/দোষ ধরার প্রবৃত্তিযুক্ত (Faultfinding) A= আর্স, সালফ। B= আর্নি, ব্যারা-কা, কস্টি, ইপি, ল্যাকে, লাইকো, মেজের, নাক্স-ভ, প্ল্যাটি, সিপি, ভিরেট।
৪) লোকসঙ্গ: আকাঙ্ক্ষা করে- A= আর্জ-নাই, আর্স, বিসমা, হায়োস, ক্যালি-কা, ল্যাক-ক্যান, লাইকো, ফস।
৫.১) প্রলাপ: রাতে- A= অ্যাকোন, আর্স, ব্যাপটি, ল্যাকে।
৫.২) প্রলাপ: প্রচণ্ড- A= আর্স, বেল, হায়োস, স্ট্যামো।
৬) ভ্রান্ত বিশ্বাস: পোকা দেখে – A= আর্স, বেল। B= ল্যাক-ক্যান।
৭.১) নৈরাশ্য: শীতাবস্হায়- A= আর্স, ইগ্নে। B= অ্যাকোন, অরাম, ক্যাল্ক, ক্যামো, সিপি, ভিরেট।
৭.২) নৈরাশ্য: রোগারোগ্যকালে-A= আর্স, ক্যাল্ক।B= অ্যাকোন, ব্রায়ো, হেলি, সোরিন, সিপি।
৭.৩) নৈরাশ্য: ধর্মবিষয়ক (আত্মার মুক্তি প্রভৃতি) সম্বন্ধে- A= আর্স, অরাম, ল্যাকে, লিলি-টা, ভিরেট।
৮.১) ভয়: একাকি থাকলে- A= আর্জ-নাই, আর্স, ক্রোটন, হায়োস, ক্যালি-কা, লাইকো, ফস।
৮.২) ভয়: মৃত্যুর- A= অ্যাকোন, আর্স, ক্যাল্ক, সিমিসি, জেলস, ল্যাকে-ক্যান, নাই-অ্যাসি, ফস, প্ল্যাটি।
৯) নম্রতা (Mildness)/ শান্তভাব (Gentleness)- A= আর্নি, আর্স, বোরা, ককুল, ন্যাট্র-মি, পালস, রাস, সাইলি।
১০) ভর্ৎসনা করে : অপরকে-A=আর্স, চায়না। B=অ্যাকোন, হায়োস, ল্যাকে, লাইকো, ন্যাট্র-মি, নাক্স-ভ।
১১.১) অস্হিরতা: রাতে- A= আর্স, কস্টি, হায়োস, ক্যালি-আর্স, ক্রিয়ো, লাইকো, মার্ক, পালস, রাস। সালফ।
১১.২) অস্হিরতা: উদ্বিঘ্ন ইত্যাদি- A= আর্স, ক্যালি-আর্স, ক্যালি-কা, ন্যাট্র-আর্স, ন্যাট্র-কা, ট্যারেন্টু।
১১.৩) অস্হিরতা: উদ্বিঘ্ন, দ্রুত চলতে বাধ্য হয়- A= আর্স, ট্যারেন্টু। B= আর্জ-নাই। C= লিলি-টা, সাল-অ্যাসি।
১১.৪) অস্হিরতা: বিছানা হতে ওঠিয়ে দেয়- A= আর্স, বিসমা, ফেরাম, রাস, সাইলি।
১১.৫) অস্হিরতা: বিছানায় এপাশ ওপাশ করে- A= আর্স, কুপ্রা, ফেরাম, রাস, ট্যারেন্টু।
১২) সংজ্ঞা তীব্র (Senses)- A= আর্স, বেল, কফি, নাক্স-ভ, ওপি, ফস।
১৩) চমকে ওঠে, হঠাৎ চকিত হয় (Starting, startled) A= আর্স, বেল, ব্রায়ো, ক্যাপসি, হায়োস, ল্যাক-ক্যান, ন্যাট্র-আর্স, ন্যাট্র-মি, স্ট্র্যামো, স্ট্রনসি।
১৪) কথা বলতে ইচ্ছে: অন্যের কথায় বাড়ে- A= আর্স, নাক্স-ভ।
১৫) খোলা বাতাসে উপশম- A= অ্যালু, আর্জ-নাই, আর্স, ক্যানা-ই, আই, ক্যালি-আই, ম্যাগ-কা, ম্যাগ-মি, ন্যাট্র-সাল, পালস, রাস, স্যাবাডি, স্যাবি ।
১৬) উৎকণ্ঠা (Anxiety), সর্বাঙ্গীন, দৈহিক -A= আর্জ-নাই, আর্স,ক্যাম্ফর, ক্যামো, ডিজি, ইপি, নাক্স-ভ, ফস-অ্যাসি, ফস, পালস, সালফ।
১৭) ওপরদিকে ওঠতে (Ascending) বাড়ে- A= আর্স, ব্রায়ো, ক্যাল্ক, কোকা, সাইলি, স্পঞ্জি।
১৮) সাধারণভাবে ঠান্ডায় বাড়ে (Cold in general agg)- আর্স,অরাম, ব্যারা-কা, ক্যান্হা, ক্যামো, হিপার, ক্যালি-আর্স, ক্যালি-বাই, ক্যালি-কা, লাইকো, মস্কাস,নাক্স-ভ, ফস-অ্যাসি, পাইরো, রাস, স্যাবাডি, সিপি, সাইলি, সাল-অ্যাসি ।
১৯) হিমাঙ্গাবস্হা (Collapse)-A=অ্যামন-কা, আর্স, কার্বো-সাল, কার্বো-ভে।
১৯.২) হিমাঙ্গাবস্হা: উদরাময়ের পর- A= আর্স, ক্যাম্ফ, কার্বো-ভে, ভিরেট।
২০) শীর্ণতাঃ (Emaciation) – অ্যাব্রোটে, আর্স, ব্যারা-কা, ক্যাল্ক, চায়না, ফেরাম, গ্র্যাফ, হেলি, আই, লাইকো, ন্যাট্র-মি, নাই-অ্যাসি, নাক্স-ভ, ফস, প্লাম্বা, সেলি, সাইলি,স্ট্যানা, সালফ, টিউবার।
২০.১) শীর্ণতা: শিশুদের (পুয়ে পাওয়া)-A= আর্স, আর্স-আই, ক্যাল্ক, ক্যাল্ক-ফস, আই, ন্যাট্র-মি, সাইলি।
২১) দৈহিক পরিশ্রমে বাড়ে (Exertion, physical, agg.)- A= অ্যালু, আর্নি, আর্স, আর্স-আই, ব্রায়ো, ক্যাল্ক, ক্যাল্ক-সাল, ককুল, কোনি, ফেরা-আই, জেলস, আই, লরো, ন্যাট্র-আর্স , ন্যাট্র-কা, ন্যাট্র-মি, পিক্রি-অ্যাসি, রাস, সেলি, সিপি, স্পাইজে, স্পঞ্জি, স্ট্যানা, স্ট্যাফি, সালফ।
২২.১) খাদ্য: ফলে বাড়ে- A= আর্স, ব্রায়ো, চায়না, কলো, ন্যাট্র-সাল, পালস, ভিরেট।
২২.২) খাদ্য: গরম পানীয়ে উপশম- A= আর্স, নাক্স-ভ, রাস।
২৩) পর্যাবৃত্তি: ১৪ দিন অন্তর- A= আর্স, ল্যাকে। B= ক্যাল্ক, চায়না, কোনি, পালস।
২৪) বসাবস্হায় বাড়ে (Sitting, while agg.)- A= অ্যামন-কা, আর্স,ক্যাপসি, কোনি, সাইক্লে,ইউফর্বি, লাইকো, পালস, সিপি, সালফ ভ্যালের, ভার্বাস।
২৫.১) ঘুমের আগে বাড়ে (Sleep, before agg.)- A= আর্নি, আর্স, ব্রায়ো, ক্যাল্ক, কার্বো-ভে, মার্ক, ফস,পালস, সিপি, সালফ।
২৫.২) ঘুমের শুরুতে বাড়ে (at beginning agg.)- A= আর্স, বেল, ব্রায়ো, ক্রোট-হ, ক্যালি-কা, ল্যাকে পালস, সিপি।
২৫.৩) ঘুমের সময়ে বাড়ে (during)- A= আর্নি, আর্স, বেল, বোরা, ব্রায়ো, হিপার, হায়োস, মার্ক, ওপি, পালস, সাইলি।
২৬) দাঁড়লে উপশম (amel)-A= আর্স, বেল। B= অ্যাসার, ক্যালাডি, ক্যানা-স্যাট, কলচি, আই, লিডাম, নাক্স-ভ, ফস, র্যানান-বা, সেলে, স্পাইজে, স্কুই।
২৭) বিছানায় শুলে উপশম (amel)-A= আর্স, ব্রায়ো, হিপার, ক্যালি-কা, লাইকো, নাক্স-ভ, নাক্স-ম, রাস, সিল, টিউবার।
২৮) উনুনের গরমে উপশম- A= আর্স, ব্যারা-কা, হিপার, ইগ্নে, ম্যাগ-ফস রাস, সাইলি।
২৯.১) দুর্বলতা/ক্লান্তি: উদরাময় হতে- A= আর্স, চায়না, নাই-অ্যাসি, ওলিয়ে, পিক্রি-অ্যাসি, পডো, সিপি, সাইলি, ভিরেট।
২৯.২) দুর্বলতা/ক্লান্তি: খাবার পরে- A= আর্স, ব্যারা-কা, ক্যাল্ক-ফস, ক্যানা-স্যাট, সাইক্লে, নাক্স-ভ, ফস-অ্যাসি সাল-অ্যাসি।
২৯.৩) দুর্বলতা/ক্লান্তি: সামান্য পরিশ্রমে-A= আর্স, ব্রায়ো , ক্যাল্ক, কোনি, ল্যাকে, ন্যাট্র-কা, ফস-অ্যাসি, পিক্রি-অ্যাসি, রাস, স্যালে, স্পঞ্জি।
লেখক-Dr. Moin Uddin
সূত্র-অনলাইন কালেকশন
ডা. এইচ এম আলীমুল হক, আলহক্ব হোমিও ফার্মেসী, মুক্তিস্মরণী, চিটাগাংরোড, শিমরাইল মোড়, সিদ্ধিরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ। ০১৯২০-৮৬৬ ৬১০

One Comment