আর্নিকা মন্ট (Arnica Mont)

লেওপার্ড বেন জাতীয় গাছড়া (কম্পোজিটা)
# নিজস্বকথা:
১। বেদনা, আঘাত জনিত বেদনা এবং রোগজনিত বেদনা। যে কোন বেদনা।
২। স্পর্শকাতরতা ও অস্থিরতা।
৩। বিছানা শক্ত মনে হয় কিন্তু অন্যান্য কষ্ট সম্বন্ধে বলে সে ভাল আছে।
৪। সজ্ঞানে প্রলাপ ও আতঙ্ক।
# মূলকথা:
১। আঘাত, পতন, চাপা লেগে থেঁৎলে যাওয়ার জন্য তরুণ বা পুরাতন উপসর্গে সর্বাপেক্ষা উপযোগী।
২। শরীরে চোট লাগার মত কালশিরা পড়ে, আঘাতের দরুন রক্তস্রাব।
৩। সমস্ত শরীরে অত্যন্ত বথা, স্পর্শ-ভীতি, কেহ তাকে স্পর্শ করুক তা চায় না, বিছানা শক্ত মনে হয়।
৪। মস্তক ও মুখমন্ডল গরম কিন্তু শরীরের অন্যান্য অংশ শীতল।
৫। অচৈতন্য অবস্থায় অসাড়ে মল-মূত্র ত্যাগ, কথার জবাব দিতে দিতে পুনরায় তন্দ্রায় আচ্ছণœ হয়ে পড়ে।
৬। জরায়ু প্রদেশে চোট লাগার মত বেদনা, রোগী সোজা হয়ে চলতে পারে না।
# উপযোগিতা:
* স্নায়ুবিক স্ত্রীলোক, মোটাসোটা রক্তপ্রধান, মুখশ্রী সতেজ ও ভীষণ লালচে আভা মুখমন্ডলে- এমন ব্যক্তির ক্ষেত্রে উপযোগী।
* মদ খাওয়ার ফলে ও কয়লার ধোঁয়ায় শ^াসরোধ হয়ে রোগ হলে- সময়ে সময়ে আর্নিকা সূচীত হয় (এমন-কা, বোভিষ্টা)।
# মানসিক লক্ষণ: অসুস্থ অথচ বলে তার কিছু হয় নাই।
# অনুভূতি:
* যাতে সে শোয় সককিছুই শক্ত বলে মনে হয় ; বিছানা শক্ত- সবসময় এই অভিযোগ করে নরম জায়গা পাওয়ার জন্য সে অবিরত এপাশ ওপাশ করে থাকে।
* দেহের উপর অংশে তাপ ও নীচের দিকে ঠান্ডা। কেবলমাত্র মুখমন্ডল বা মুখ-মাথা গরম বাকী অংশ ঠান্ডা।
# ব্যথাবেদনা:
* যে দিকে চেপে শোয় দেহের সেই অংশে ক্ষতবৎ ও থেৎলানো ব্যথা অনুভব করে (ব্যাপ্টি, পাইরো)। উপশম পেতে সর্বদা নড়াচড়া করতে থাকে (রাসটক্স)।
* সর্বাঙ্গে ক্ষতবৎ, খোঁড়াদের মত, থেৎলে যাওয়ার মত ব্যথাবেদনা, মনে হয় যেন তাকে পেটানো হয়েছে।
* স্নায়ুবিক, ব্যথাবেদনা সহ্য করতে পারে না- সারাদেহ স্পর্শকাতর হয়ে পড়ে (ক্যামো, কফিয়া, ইগ্নে)।
* বাত বা গিটেবাত, কেউ কাছে আসলে তার ছোঁয়া বা আঘাত লাগার ভীতি- এ লক্ষণে প্রযোজ্য।
# আঘাত জনিতঃ
* শরীরের কোন যন্ত্র বাহ্যিক আঘাতের কুফলে রোগ- তা যদি বহুদিন আগেও হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে। যাদের সামান্য ছোটখাট আঘাতের অনুভূতি বহুদিন যাবৎ থেকে যায় বিশেষভাবে তাদের ক্ষেত্রে উপযোগী। পেশীতে আঘাত লেগে রোগ হলে উপযোগী।
* মাথায় ঝাঁকানি বা হাড়ে কোনভাবে চাপ লেগে, মানসিক আঘাত বা দেহে কোনভাবে আঘাত লেগে, দেহের নরম অংশে বা মাংসপেশীতে আঘাত লেগে তাতে ছিড়ে যায় না- এমন আঘাতে পূঁজ হতে দেয় না অথবা পূঁজরক্ত শুষে নিতে সাহায্য করে।
* উঁচুস্থান হতে পড়ে গিয়ে আঘাত, বিশেষতঃ যদি মাথায় ঝাকুনি লেগে অজ্ঞান হয়ে ও অসাড়ে মলমূত্র ত্যাগ করলে প্রযোজ্য।
* ভোঁতা কোন কিছুতে আঘাত লাগার পরবর্তী অবস্থায় (সিম্ফাইটাম), হাড় ভেঙ্গে গিয়ে তাতে প্রচুর পুঁজ জমলে (ক্যালেন্ডুলা)।
# অচেতভাবঃ
কোন কিছু প্রশ্ন করলে সঠিক উত্তর দেয় পরক্ষণেই অচেতন ও প্রলাপভাব ফিরে আসে। (কোন কিছু বলতে বলতে মাঝপথে ঘুমিয়ে পড়ে- ব্যাপ্টি)।
# মেনিনজাইটিসঃ
স্পাইনাল কর্ড ও ব্রেইন বা মস্তিষ্কের মেব্রেন বা পর্দার প্রদাহ। উঁচু স্থান হতে পড়ে গিয়ে, মাথায় ঝাকি লেগে, ইত্যাদি কারণে মস্তিষ্কের ভিতরে রক্ত¯্রাব হচ্ছে এরকম আশঙ্কায় প্রয়োগ করলে রক্তস্রাব শুষে নিতে সাহায্য করবে।
# মস্তিষ্কের শোথ:
মস্তিষ্কে পানিজমা (হাইড্রোসেফেলাস) রোগে শিশুদের সামনের হাত দুটি মড়ার মত ঠান্ডা (উক্ত লক্ষণে উদরাময়ে- ব্রোমিয়াম)।
# সন্নাসরোগ:
জ্ঞান হারায়, অসাড়ে মলমূত্র ত্যাগ করে। তরুন আক্রমণে ক্ষরিত রক্ত বন্ধ ও শোষণে যাহায্য করে। অন্য ঔষধের লক্ষণ না পাওয়া অবধি এর প্রয়োগ চলতে থাকবে। কয়েকদিন বা কয়েক সপ্তাহ ধরে এর কাজ হতে দেবে- এ্যালেন।
# চোখ:
আঘাত বা দমকা কাশির জন্য চোখের সাদা অংশ ও রেটিনা হতে রক্ত¯্রাব, সেই সাথে রক্ত জমে থাকা (লিডাম, নাক্স)।
# ফোড়া:
একটার পর একটা ছোটছোট ভীষণ ব্যথাযুক্ত ফোড়া হবার প্রবণতা- ফোড়ায় ভীষণ ব্যথা থাকে (দলে দলে ছোটছোট ফোড়া হলে- সালফার)।
# পক্ষাঘাত:
বামদিকের পক্ষাঘাত, নাড়ী পূর্ণ ও সবল, নিশ^াসে ঘড়ঘড় শব্দ, দীর্ঘশ^াস সাথে বিড়বিড় করে প্রলাপ বকে।
# কোষ্ঠবদ্ধতা:
* রেকটাম বা মলদ্বার মলে ভর্তি অথচ মল বের হতে চায় না।
* প্রষ্টেট গ্লা- বেড়ে বা জরায়ুমুখ উল্টে গিয়ে সরু ফিতার মত চ্যাপ্ট মল।
# স্ত্রীজননাঙ্গ:
* পেলভিক বা বস্তিদেশে- থেৎলে যাওয়ার মত ব্যথা, সোজা হয়ে হাটতে পারে না।
* প্রসবের পর জননাঙ্গে ক্ষতবোধ, প্রসবের পর রক্তস্রাব ও নানা উপসর্গে এ ঔষধ প্রয়োগে নিবারণ হয়।
* প্রসবের পর প্রস্রাব বন্ধ বা অসাড়ে প্রস্রাব এ ঔষধে সারায় (ওপি)।
# বৃদ্ধি- বিশ্রামে, শুইলে, মদ খেলে।
# উপশম- স্পর্শে ও নড়াচড়ায় (রাসটক্স, রুটা)।
# সম্বন্ধ:
* সমগুণ- থেতলানোর মত ব্যথায়- ব্যাপি, চায়না, ফাইটো, পাইরো, রাসটক্স, রুটা, স্ট্যাফি।
* সাদ্রশ্য- মেরুদন্ডের আঘাতে হাইপেরিকামের সাথে তুলনিয়।
* অনুপুরক- একোনাইট, হাইপেরিকাম, রাসটক্স।
* পূর্ববর্তী- একোন, এপিস, হেমামে, ইপি ও ভিরেট্রাম এর পর ভাল কাজ করে।
* পরবর্তী- আর্নিকার পর এসিড সালফ সুন্দর কাজ করে।
# শক্তি- ৩, ৩০, ২০০
সূত্র- এলেন কিনোটস অব মেটিরিয়া মেডিকা
ডা. এইচ এম আলীমুল হক, আলহক্ব হোমিও ফার্মেসী, মুক্তিস্মরণী, চিটাগাংরোড, শিমরাইল মোড়, সিদ্ধিরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা, বাংলাদেশ। ০১৯২০-৮৬৬ ৬১০