(30) Phytolacca (ফাইটোলাক্কা)

🏹উৎসঃ-উদ্ভিজ ঔষধ 
🏹মায়াজমঃ-এ্যান্টিসোরিক, এ্যান্টিসিফিলিটিক ও এ্যান্টিসাইকোটিক ঔষধ | 
🏹কাতরতাঃ-শীতকাতর ঔষধ | 🏹 অনুপূরকঃ সাইলিসিয়া।
🏹সদৃশঃ ব্রায়োনিয়া, কেলিবাই, মার্কসল।
🏹প্রতিষেধকঃ বেল, ডিজিটেলিস, ইগ্নেসিয়া।
🏹বৃদ্ধিঃ পানিতে ভিজে, বৃষ্টি হতে থাকলে, আদ্র ও ঠান্ডা আবহাওয়ায়, খালি গায় থাকলে, রাতে, নড়াচড়ায় ও ডানদিকে।
🏹উপশমঃ তাপে, শুষ্ক আবহাওয়ায় ও বিশ্রামে।
🏹সামগ্রিক লক্ষনঃ-ব্যথা, টাটানি, অস্থিরতা, অবসন্নতা এই কয়টি লক্ষণই ফাইটোলক্কার পরিচায়ক। ইহা প্রধানতঃ একটি গ্রন্থি সম্বন্ধীয় ঔষধ। গ্রন্থিগুলির পীড়া ও স্ফীতি, তরুণ ও পুরাতন বা উপদংশ জনিত বাত অস্থিবেদনা, গলগ্রন্থি ফোলা, গলক্ষত, ডিপথেরিয়া, স্তনগ্রন্থি প্রদাহ প্রভৃতি পীড়ায় ইহা সাধারণত ব্যবহৃত হয়।
শরীরের দক্ষিন দিক বেশী আক্রান্ত হয় ও বেদনা রাত্রে ও বর্ষাকালে বৃদ্ধি প্রাপ্ত হয়। স্থান পরিবর্ত্তনশীল বেদনা, ঠাণ্ডা লাগিয়া বুকের পাঁজরা প্রান্তে বেদনা, গাঁঠ ফোলা, তরুণ বাতেও উপযোগী।
ইহার রোগীর গলায় কিছু আটকাইবার অনুভুতি, তৎসহ ক্রমাগত গিলিতে চায়, গলমধ্যে ছাইরঙের আস্তরণ, গরম পানীয় পান করিতে অক্ষম। 
জিহ্বার উপর যেন একটুকরা জলন্ত কয়লা রহিয়াছে এরুপ অনুভুতি। মূল আরক মেদ কমানোর ক্ষেত্রে ভাল কাজ করে |
অনিচ্ছায় জীবনধারন, মনে করে মৃত্যু আসন্ন । বিছানা হইতে উঠিলেই শিরঃঘূর্ণন, মূর্চ্ছাভাব। মস্তকে ও কটিদেশে অত্যন্ত বেদনা, সমস্ত শরীরে থেৎলান ব্যাথা, নড়িবার ইচ্ছা কিন্তু নড়াচড়া করিলেই বেদনার বৃদ্ধি । দন্তদ্গম কালে শিশু যে কোন বস্তু পাইলেই কামড়াইতে চায়। 
ঘাড়ে ও থুতনির গ্লান্ড সমূহের স্ফীতি । ব্রায়োনিয়া ও রাসটক্সের মধ্যবর্তী লক্ষণে যদি উভয় ঔষধে ক্রিয়া না করে তবে ইহা ব্যবহৃত হয়। এই ঔষধটি স্তন টিউমার, পেটের মেদ ও ক্যানসারে খুবই ফলপ্রদ|