(24) Ledum (লিডাম)

♣ সমনামঃ মার্শটি, ওয়াইল্ড রোজমেরি।
♣ মায়াজমঃ সোরিক, টিউবারকুলার, সিফিলিটিক।
♣ সাইডঃ ডানপাশ, বামপাশ, ওপরে বামপাশ নিচে ডানপাশ।
♣ কাতরতাঃ গরমকাতর।
♣ উপযোগিতাঃ জৈব উত্তাপের অভাব। বাত ও গিটবাতজনিত অসুখে ভোগে, মদ খেয়ে স্বাস্থ্য বিকৃতি হয়েছে এমন লোকদের পক্ষে উপযোগী। চোখের তারায় অপারেশনের ( ছানি কাটা) পর চোখের ভেতর সামনের প্রকোষ্টে রক্তস্রাব হয়ে রক্ত জমা হলে উপযোগী। যাদের দেহ সর্বদা ঠান্ডা, যারা সর্বদা ঠান্ডা বা শীত অনুভব করে, জৈবউত্তাপের অভাব যাদের ( সিপি, সাইলি) তাদের ক্ষেত্রে উপযোগী।
♣ ক্রিয়াস্থলঃ ফাইব্রোয়াস টিসু, ছোট সন্ধি, টেনডনগুলো, চোখ, গোড়ালি, হাঁটু, সূক্ষ্ম শ্বাসনালি, রক্ত সঞ্চালন, চামড়া, ফুসফুস, পেরিওস্টিয়াম, রক্ত, নার্ভাস, মস্তিক, অস্হি ।
♣ বৈশিষ্ট্যঃ হ্যানিম্যান তাঁর লিডাম প্রুভিং এর ভূমিকায় বলেন, ” এটি ক্রোনিক রোগের ক্ষেত্রে উপযোগী যেখানে রয়েছে শীতলভাব প্রাধান্য ও জৈবিক উত্তাপের অভাব”। টেস্টি, যিনি লিডামের ক্লিনিক্যাল অথরিটির মাঝে প্রধান উল্লেখ করেন যে, উত্তর ইউরোপের আর্দ্র অঞ্চলের আদিবাসী এবং ছাগল ছাড়া অন্য কোনো প্রাণী এটি খায় না, কারণ হলো এর পাতায় একটা শক্তিশালী রেসিনজাতীয় ঘ্রাণ আছে, যা ” উকুনকে দূরে রাখে এবং ময়দাতে ছত্রাক পড়তে বাধা দেয়”।
♣ ফিজিওলজিক্যাল কাজঃ ১) শ্বাস-প্রশ্বাসে কষ্ট উৎপন্ন করে। ২) গলদেশের সর্বত্র তীরবেঁধামতো যন্ত্রণা বোধ হয়। ৩) ভীষণ চুলকানি প্রকাশ পায়। ৪) কাশির সাথে উজ্জ্বল রক্ত ওঠে। ৫) সন্ধিস্থলগুলো বিশেষতঃ পা দুটোর বুড়ো আঙুলের প্রদাহ এবং ফোলা। ৬) যন্ত্রণা সন্ধ্যার সময় বাড়ে এবং সরে বেড়ায়।
♣ সারসংক্ষেপঃ জৈব উত্তাপের অভাব। রোগী গরম কাতর অথচ সর্বদা শীত শীত ও ঠান্ডাবোধ করে। বাত ও গিটবাতজনিত অসুখে ভোগে। মধ্য রাতের আগে, আক্রান্ত অঙ্গের সঞ্চালনে, হাঁটলে, গরমে, উষ্ণতায় ও স্পর্শে বাড়ে। গোসলে, ঠান্ডায়, বিশ্রামে, স্থির হয়ে থাকলে ও পায়ের পাতা বরফঠান্ডা জলে রাখলে কমে। খিটখিটে, উৎকন্ঠা ও ভীরুতা, উত্তেজনাপ্রবণতা, প্রতিহিংসা পরায়ণ, রাগ ও ক্ষিপ্তাবস্থা, বিষণ্নচিত্ত ও বিরূপভাবাপন্ন। আঘাতপ্রাপ্ত অংশের শীতলতা। নিম্নাঙ্গে রোগাক্রমণ বা প্রথম নিম্নাঙ্গ, পরে উর্ধাঙ্গ। শোথ। স্নায়ুকেন্দ্রে আঘাত। ক্ষত: বিষাক্ত জন্ত্তর দংশন, ছুঁচালো মুখবিশিষ্ট কোনো কিছুতে বিঁধে, হাতের তালু ও পায়ের তলায়
♣ অনুভূতিঃ ১) নিতম্বে বুদ বুদ ওঠার অনুভূতি ।
২) আড়াআড়িভাবে অনুভূতি। ৩) রোগী গরম কাতর অথচ সর্বদা শীত শীত ও ঠান্ডাবোধ করে।
♣ ক্রম ও সহচর লক্ষণঃ ১) আথ্রাইটিস নোডোসাইটিসে নড়াচড়া করার সময় চিমটি মারা অনুভূতি ও কটকট শব্দ । ২) আড়ষ্টতার সাথে হাত-পায়ে বাতজ ব্যথা ঠান্ডায় উপশম। ৩) ডান নিতম্বে ও বাম কাঁধে বাতজ ব্যথা।
< বৃদ্ধিঃ অপরাহ্নে, সন্ধাকালে, রাতে, মধ্য রাতের আগে, সাধারণভাবে ঠান্ডায়, মাথায় ঠান্ডা লাগালে, দ্রুত আহারে, পালকের শয্যায়, সঞ্চালনে, আক্রান্ত অঙ্গের সঞ্চালনে, রাতের আগমনে, ঘর্ষণে, দৌড়ালে, বসাবস্হায়, স্শর্শে, হাঁটলে, গরমে, উষ্ণতায় ।
> হ্রাসঃ গোসলে, শুয়ে থাকলে, নিচে বসতে গেলে, দাঁড়ালে, ঠান্ডায়, বিশ্রামে, বিছনার বাইরে।
♣ কারণঃ অ্যালকোহলের কুফল, আঘাত, ইঁদুর এর কামড়, চুল কাটলে, স্রাব অবরুদ্ধে, তরুণ ও পুরাতন আঘাত, কাঁটা-পেরেক বিদ্ধ হওয়া, সূঁচালো দ্রব্য বিঁধে যাওয়া, হুল ফোটানো।
♣ ক্রিয়ানাশকঃ ক্যাম্ফ, কফি, ইপি, ওপি, রাস।
♣ শত্রুভাবাপন্নঃ চায়না।
♣ প্রয়োগঃ কাঁটা বা পেরেক বিদ্ধজনিত অথবা ছিন্নক্ষতে তাড়াহুড়ো করে অ্যান্টি টিটেনিক সিরামের দিকে ধাবিত হয়ো না। কয়েকমাত্রা লিডাম -পল দাও, তাহলে তোমার উদ্বেগের কারণ থাকবে না। — ডা. হ্যান্ডারসন।

= উপরোক্ত লক্ষণ সাদৃশ্যে যে কোন রোগেই আমরা লিডাম প্রয়োগ করতে পারবো।