Cantharis (ক্যান্থারিস): গুরুত্বপূর্ণ রুব্রিকসহ

৩০। ক্যান্হারিস ভেসিকেটোরিয়া (Cantharis)
D.H.M.S. ( 2nd year).
♣ সমনামঃ ক্যান্হারিস ভেরিকেটরিস, ব্লিস্টার ফ্লাই,স্পেনিস ফ্লাই।
♣ মায়াজমঃ সোরিক সাইকোটিক।
♣ সাইডঃ ডানপাশ, ডানপাশ হতে বামপাশ।
♣ কাতরতাঃ শীতকাতর।
♣ উপযোগিতাঃ অসহিষ্ণুতা, স্পর্শকাতরতা, দেহের সকল অংশ অংশ অনুভূতি সম্পন্ন। তরুন রোগে, যাদের বিভিন্ন দ্বার দিয়ে রক্তস্রাবের প্রবণতা, যে কোনো রোগের সাথে জ্বালা ও প্রদাহ, জ্বালার প্রকৃতি অগ্নিদগ্ধবৎ।
♣ ক্রিয়াস্থলঃ পুংজনন তন্ত্র, মূত্রযন্ত্র, শ্লৈষ্মিক ঝিল্লি, রক্ত, অন্ত্র, স্নায়ু, চর্ম, দক্ষিণ দিক, নিম্ন উদর।
♣ ফিজিওলজিক্যাল কাজঃ ক্যান্হারিসে ফিজিওলজিক্যাল কাজে দেখতে পাওয়া যায় (irritating property) অর্থাৎ উপদাহগুণই হচ্ছে এর সর্বপ্রধান লক্ষণ এবং এটি এ ওষুধের প্রথম হতে শেষ পর্যন্ত বর্তমান রয়েছে। প্রদাহের যন্ত্রণা অত্যন্ত ভীষণ আগুনের মতো জ্বলনসদৃশ। সর্বপ্রথম মূত্রযন্ত্র আক্রান্ত এবং জ্বালা- যন্ত্রণা ও টাটানি উৎপন্ন করে রোগীকে বার বার প্রস্রাব করতে হয় এবং প্রস্রাব খোলসাভাবে পরিষ্কার হয় না।
♣ সারসংক্ষেপঃ সংবেদনশীলতা ও রক্তস্রাবপ্রবণতা, জ্বালা, আগুনের মতো জ্বালা ও প্রদাহ। বিকেল ৩ টা হতে রাত ৩ টা পর্যন্ত শীতবোধ হয়। প্রস্রাবের আগে, সময় এবং পরে, পানির শব্দে, ঠাণ্ডা লাগলে, কফিপানে ও শীতল পানীয়ে বাড়ে। মর্দনে, গরমে, ঘামের পরে ও শুয়ে থাকলে কমে। প্রচণ্ড ক্রোধ, সংগমেচ্ছা বর্ধিত, উদ্বেগপূর্ণ অস্হিরতা, প্রলাপ ও ভ্রান্ত বিশ্বাস মূত্রকৃচ্ছ্রতার সাথে অসহ্য বেগ। পর্যাবৃত্তি: সপ্তম দিনে। আকস্মিকতা ও ভীষণতা।
♣ অনুভূতিঃ (১) বিকেল ৩টা হতে রাত ৩টা পর্যন্ত শীতবোধ হয়।
(২) পোকা হাঁটার মতো অনুভূতি: অভ্যন্তরীণ ও গ্রন্হিগুলোতে ।
♣ ক্রম ও সহচর লক্ষণঃ (১) আমাশয়ের সাথে জিবের ছাল ওঠে যাওয়া অবস্হা। (২) কেটে ফেলার মতো যন্ত্রণা মূত্রথলীর ঘাড় হতে মূত্রনালি পর্যন্ত বিস্তৃত বা প্রসারিত হয়। (৩) প্রস্রাব ফোটা ফোটা করে ঝরে এবং গরম পানিতে ঝলসানোর মতো যন্ত্রণা হয় ।
< বৃদ্ধিঃ প্রাতে, পূর্বাহ্নে, রাতে, প্রস্রাবের আগে, সময়ে এবং পরে, ঠাণ্ডা পানীয়ে, উজ্জ্বল বস্তু ও পানিপূর্ণ স্হান দেখলে, পানির শব্দে, আবেদন, প্রবাহমান পানি দর্শনে, কেউ তার দিকে এগিয়ে আসলে, গোসলে, সঙ্গমকালে, ঠাণ্ডা লাগালে, হাত বিছানার বাইরে রেখে, নিচের দিকে নামলে, খাদ্য: কফিপানে, শীতল পানীয়ে, সঞ্চলনে, চাপপ্রয়োগে প্রকোপ, ঘর্ষণে প্রকোপ, দাঁড়লে, স্পর্শে প্রকোপ।
♣ উপশমঃ টিপে দিলে, গরমে, পিঠে চেপে শুলে, আক্রান্ত অঙ্গে হাত রাখলে, শুয়ে থাকলে, শুয়ে থাকার পরে, চিৎ হয়ে শুলে, বিছানায় শুলে, একপাশে চেপে শুলে, ঘামের পরে, চাপে, মর্দনে, উনুনের গরমে, মদে।
♣ কারণঃ আগুনে পোড়া। গনোরিয়া।
♣ ইচ্ছাঃ মাংস।
♣ শত্রুভাবাপন্নঃ কফিয়া।
♣ ক্রিয়ানাশকঃ অ্যাকোন, পালসটিলা, রিউম, অ্যাপিস, ক্যাম্ফ, লরোসি, ক্যালি-নাই।
♣ প্রয়োগঃ এটি একটি অদ্ভূত ঘটনা, যদিও এটি অধিকংশ চিকিৎসকই জানেন, যদি কোনো ক্ষেত্রে বারবার মূত্রত্যাগ বা প্রস্রাবের সাথে জ্বালা ও কর্তনমতো যন্ত্রণা থাকে বা বারবার প্রস্রাব না হয়েও যদি মূত্রস্রাবে কর্তনমতো বা জ্বালাকর ব্যথা থাকে তবে অন্যান্য রোগেও এমনটি মস্তিষ্ক এ ফুসফুসের প্রদাহেও সর্বদাই ক্যান্হারিস ব্যবস্হেয়- এইচ.এন. গ্যারেন্সি ।
= উপরোক্ত লক্ষণ সাদৃশ্যে যে কোন রোগেই আমরা ক্যান্হারিস প্রয়োগ করতে পারবো।

গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি রুব্রিকঃ
১.১) প্রলাপ (Delirium) A= অ্যাগারি, আর্স, অরাম-ট্রি,বেল, ব্রায়ো, ক্যানা-ই, চেলিডো, হায়োস, ল্যাকে, লাইকো, নাই-অ্যাসি, ওপি, রাস, সিকেলি স্ট্যামো। B= অ্যাকোন, অ্যাক্টি-স্পি, ইথু, অরাম, ব্যাপটি, ক্যাল্ক, ক্যাম্ফ, ক্যান্থা, কার্বো-সাল, ক্যামো, সাইকু, সিনা, কলচি, কোনি, ক্রোটেল-ক্যাস্ক, ক্রোটেল, ডিজি, ডালকা জেলস, ইপি,মার্ক নাক্স-ম, নাক্স-ভ, ওন্যান্হ, পেট্রো, ফস, পালস, সালফ, ট্যারেবি, ভিরেট, ভিরেট-বি।
১.২) প্রলাপ: রাতে- A= অ্যাকোন, আর্স, ব্যাপটি, ল্যাকে। B= অ্যাপিস, বেল, ব্রায়ো, ক্যাক্টা, ক্যান্থা, কার্বো-সাল, চেলিডো, ক্রোটেল, ক্যালি-আর্স, ক্যালি-কা, লাইসি, মার্ক, প্লাম্বা, পালস, স্ট্যামো।
১.৩) প্রলাপ: বিস্ফারিত চোখে মূঢ়ের মতো- A= ভিরেট। B= ক্যান্থা, হায়োস, স্ট্যামো।
১.৪) প্রলাপ: ক্রোধোন্মাত্ত,গর্জনশীল- A= অ্যাগারি, বেল, ক্যান্থা, হায়োস, লাইকো, নাই-অ্যাসি,,ওপি স্ট্র্যামো, ভিরেট।
২) প্রচণ্ড ক্রোধ (Rage, fury)/ ক্রোধান্দ্ধ, সাময়িক উন্মত্ততা (Frantic, frenzy)/ প্রচণ্ড ক্রোধ (Fury)- A= অ্যাগারি, বেল, ক্যান্থা হায়োস, ল্যাক-ক্যান, লাইকো, মস্কাস, ওপি, স্ট্যামো, ভিরেট।
৩) সঙ্গমকালে (coition during)- B= ক্যান্থা, গ্র্যাফ, ক্যালি-কা, সেলি। C= অ্যানাকা, অ্যাসাফ, ব্যারা-কা, ক্যালাডি, ফেরাম, লাইকো, সিপি, থুজা।
৪) ঠাণ্ডা লাগালে বাড়ে- A= আর্স,অরাম, ব্যারা-কা, ক্যান্থা, ক্যামো, হিপার, ক্যালি-আর্স, ক্যালি-বাই, ক্যালি-কা, লাইকো, মস্কাস, নাক্স-ভ, ফস-অ্যাসি, পাইরো, র্যানান-বা, রাস, স্যাবাডি, সিপি, সাইলি, সাল-অ্যাসি।
৫.১) আক্ষেপ: ক্ষণিক- A= অ্যাগারি, বেল, বিউফো, ক্যান্থা, ক্যামো, সাইকু, কুপ্রা, হায়োস, লাইসি, ওপি, প্লাম্বা, সিপি, স্ট্যামো ।
৫.২) আক্ষেপ: সংজ্ঞাহীনতাসহ- A= আর্জ-নাই, বিউফো, ক্যাল্ক, ক্যান্থা, সাইকো, ফেরাম, হায়োস, ওনান, প্লাম্বা, ভিসকা।
৬.১) খাদ্য: কফিপানে বাড়ে- A= ক্যান্থা, কস্টি, ক্যামো, ইগ্নে,নাক্স-ভ।
৬.২) খাদ্য: শীতল পানীয়ে বাড়ে- A= ক্যান্থা ফেরাম, রাস।
৭) রক্তস্রাব (Haemorrhage)- A= আর্নি, বেল, বোথ্রো, ক্যাল্ক, ক্যাল্ক-সাল, ক্যান্থা, কার্বো-ভে, চায়না, ক্রোটেল, ইরিজি, ফেরাম, হ্যামামে, ইপি, মেলিলো,মিলি, ন্যাট্র-মি, নাই-অ্যাসি, নাক্স-ভ, ফস, পালস, স্যাবি, সালফ, সাল-অ্যাসি।
৮.১) প্রদাহ: অভ্যান্তরীকভাবে- A= অ্যাকোন, আর্স, বেল, ব্রায়ো, ক্যান্থা, চায়না, ইচিনে, জেলস, আই, ল্যাকে, মার্ক, নাক্স-ভ, ফস, প্লাম্বা, পালস, সিকেলি, টেরিবি।
৮.২) প্রদাহ: গ্যাংরীন প্রকৃতি- A= আর্স, ক্যান্থা, ল্যাকে, সিকেলি, সাইলি ।
৯) উত্তেজনা প্রবণতা ( Irritability, excessive physical) অত্যধিক, দৈহিক – A= অ্যাপিস, আর্নি, অ্যাসের, অরাম, বেল, ক্যান্থা, কফি, মেডো, মার্ক, নাই-অ্যাসি, নাক্স-ভ, সাইলি, স্ট্যাফি, টিউক্রি।
১০.১) ব্যথা: জ্বালাকর অভ্যন্তরীকভাবে-
A= অ্যাকোন, আর্স, অরাম-টি, বেল, বার্বে, ব্রায়ো, ক্যানা-ই, ক্যান্থা, কার্বো-সাল, গ্র্যাফ, ক্যালি-বাই, মার্ক, মার্ক-কর, মেজের, নাই-অ্যাসি, নাক্স-ভ, ফস, পালস, রাস, স্যাবাডি, স্যাঙ্গুই, সিকেলি, সিপি, স্পাইজে, স্পঞ্জি, সালফ।
১০.২) ব্যথা: কেটে ফেলার মতো অভ্যন্তরীকভাবে- A= বেল, ক্যাল্ক ক্যান্থা, কলো,কোনি, ডায়োস্কো, গ্যাম্বো, হায়োস, ক্যালি-কা, লাইকো, মার্ক, ন্যাট্র-মি, নাক্স-ভ পালস, সাইলি, সালফ।
১১) নাড়ির গতি অস্বাভাবিক এবং সবিরাম- A= ক্যান্থা, গ্লোন, হায়োস, প্লাম্বা।
১২)মর্দনে উপশম- ক্যাল্ক, ক্যান্থা, কার্বো-অ্যাসি ন্যাট্র-কা, ফস, প্লাম্বা।
১৩) সংবেদনশীলতা : অভ্যন্তরীনভাবে- A= ক্যান্থা, কস্টি, সাইকু, হিপার, ল্যাকে, ন্যাট্র-মি, ফস, পালস, সাইলি, স্ট্রনসি, স্ট্র্যামো।
১৪) ডান দিকে ( Right) : A- আর্জ-মে, আর্স, অরাম, ব্যাপটি, বেল, ব্রায়ো, ক্যাল্ক, ক্যান্থা, চেলিডো,
কলো, কোনি, ক্রোট-কা, ক্রোট-হ,লাইকো, নাক্স-ভ, পালস, স্যাঙ্গুই,সার্সা, সিকেলি।
১৫)সাধারণ ফোলা: প্রদাহ (inflammatory)- A= অ্যাকোন, আর্স, বেল, ক্যাল্ক, ক্যান্থা, ক্যালি-বাই, ক্যালি-কা, মার্ক, সিপি ।
১৬) টানটান ভাব: মাংসপেশিগুলোতে- A= অ্যাকোন, ক্যান্থা, নাই-অ্যাসি, নাক্স-ভ, ফাইসো, সিপি ।
১৭) ক্লান্তিবোধ ( Weariness) – A= অ্যালু, বেঞ্জু-অ্যাসি, ক্যাল্ক-ফস, ক্যানা-স্যাট, ক্যান্থা, ক্যাপসি, কার্বো-সাল, চেলিডো, সাইকু, ক্রোকা, ফেরাম, জেলস, গ্র্যাফ, ক্যালি-ফস, লাইকো, পালস, রুটা, স্ট্যাফি, সালফ।
লেখক-Dr. Moin Uddin
সূত্র-অনলাইন কালেকশন
ডা. এইচ এম আলীমুল হক, আলহক্ব হোমিও ফার্মেসী, মুক্তিস্মরণী, চিটাগাংরোড, শিমরাইল মোড়, সিদ্ধিরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা, বাংলাদেশ। ০১৯২০-৮৬৬ ৬১০

22 Comments