(10) Natrum Phos (ন্যাট্রাম ফস)

♣ সমনামঃ ফসফেট অব সোডিয়াম, সোডিয়াম ফসফেট।
♣ মায়াজমঃ সাইকোটিক, টিউবারকুলার।
♣ কাতরতাঃ শীতকাতর।
♣ উপযোগিতাঃ । শিশু ও অম্লপীড়াগ্রস্ত ব্যক্তিদের রোগে এ ওষুধটি বিশেষ উপযোগী।
♣ ক্রিয়াস্থলঃ মাথার পেছন, মিউকাস গ্ল্যান্ডগুলো, ডিওডিনাম,পিত্তথলি, জননেন্দ্রিয়, রক্ত, পেশি, অস্হি, গ্রন্হি, স্নাযু ও মস্তিষ্ক, ফুসফুস।
♣ বৈশিষ্ট্যঃ নেট্রাম ফস রক্তের কণিকা, মাংসপেশির কোষে, স্নায়ু ও মস্তিষ্ক ও ইন্টারসেলুলার তরল পদার্থের মাঝে থাকে। নেট্রাম ফসের উপস্থিতিতে ল্যাকটিক অ্যাসিড ভেঙ্গে কার্বোনিক অ্যাসিড ও পানি হয়।
♣ সারসংক্ষেপঃ শিশু ও অম্লপীড়াগ্রস্ত ব্যক্তিদের রোগ। স্রাবে অম্লগন্ধ ও হরিদ্রাবর্ণ। ঘন ঘন ক্ষুধা বা ক্ষুধার অভাব। অনুভূতি- যেন হৃদপিন্ডে এক প্রকার বুদবুদ শুরু হয়ে দ্রুতবেগে ধমনীগুলোতে ছড়িয়ে পড়লো। প্রাতে, বিকেলে, সন্ধাকালে, শুক্রপাতে, চর্বিতে, দুধে, চিনিতে, মানসিক পরিশ্রমে ও খালি পেটে বাড়ে। ঠান্ডায়, আহারের পরে ও গরম খাদ্যে কমে। মানসিক অবসাদ, বিষণ্নতা, ভয়, সহানুভূতি পাবার আকাঙ্ক্ষা, ভ্রান্ত বিশ্বাস, ঔদাসীনতা, হতাশা, অতিরিক্ত অনুভূতিপ্রবণ ও চমকে ওঠা। কৃমিজনিত পীড়া। চিনি ও তৈলাক্ত খাবারে অজীর্ণতা। মুখের তালু ও জিবে হলদে ক্রিমের মতো বর্ণ হয়ে যায়। বীর্যস্খলনের পর হাত-পা কাঁপতে থাকে।
♣ অনুভূতিঃ ১) জিবে চুল থাকার অনুভূতি। ২) ধমনী বেয়ে চলছে এমন অনুভূতি।
♣ ক্রম ও সহচর লক্ষণঃ ১) সন্ধ্যাবেলায় মুখের তালুতে কৃত্রিম আবরণের সৃষ্টি হয়। ২) সিঁড়ি বেয়ে ওপরের দিকে ওঠলে হৃদপিন্ড কাঁপতে থাকে।

= উপরোক্ত লক্ষণ সাদৃশ্যে যে কোন রোগেই আমরা নেট্র-ফস প্রয়োগ করতে পারবো।