নির্দিষ্ট এক ফোঁটাঃ আঘাত, ক্ষত ও দংশন

আঘাত
১। পড়িয়া যাওয়া বা আঘাত লাগা হেতু মস্তিষ্কের ক্রিয়ার বিরতি ঃ- Acid Sulph
২। শরীরের সমস্ত পেশীতে ও চর্মে যেন কেহ মারিয়াছে এইরূপ বেদনা, স্পর্শ পর্যন্ত সহ্য হয়না ঃ- Badiaga
৩। আঘাত লাগিয়া মস্তিষ্কের পুরাতন পীড়া ঃ- Natrum Sulph
৪। পড়িয়া যাইয়া মেরুদন্ডে আঘাত ঃ- Turnera
৫। পতন বা আঘাত হেতু গায়ে বেদনা ঃ- Arjun
৬। অস্ত্র করিবার পর খুব যন্ত্রনা ঃ- Hypericum
৭। মাথায় আঘাত লাগিবার পর মন রোগ ঃ- Natrum Sulph
৮। গর্ভে আঘাত জনিত হিষ্টিরিয়া ঃ- Paladium
৯। আড়ভাবে থাকা অবস্থা হইতে উঠিলেই মূর্চ্ছা যায় ঃ- Aconite Nap
১০। ঘর্মকালে উপশম, ঘাম বন্ধ হইলেই ব্যথা আসে ঃ- Arsenic Alb
১১। আঘাত জনিত পুরাতন কুফল ঃ- Natrum Mur
১২। আঘাত জনিত সর্বদা তন্দ্রালুতা ঃ- Nux Mosch
১৩। আহত স্থানের ভয়ানক যন্ত্রনা ঃ- Hypericum, Veret.Viridi.
১৪। আহত স্থানে পচন ঃ- Acid Sulph
১৫। আঘাত লাগিবার ফলে চক্ষু হইতে রক্তস্রাব ঃ- Acid Sulph
১৬। আঘাতের ফলে কাল বা নীল রং এর কালশিরা পড়া ঃ- Acid Sulph
১৭। ভোঁতা অস্ত্রে আঘাত প্রাপ্ত স্থানে মধ্যে মধ্যে বেদনা ঃ- Acid Sulph
১৮। দীর্ঘকাল পূর্বে আঘাত লাগিয়াছিল এখন তাহার জন্য কোনও রোগ হইয়াছে ঃ- Carbo Veg
১৯। আছাড় খাইবার ফলে মেরুদন্ডে আঘাত ঃ- Turnera

ক্ষত
১। পুরাতন ক্ষত চিহ্ন পুণরায় লাল হয়, পাকে, ঘা হয় ঃ- Acid Flour
২। শব ব্যবচ্ছেদকালীন কাটিয়া যাইয়া ক্ষত ঃ- Anthracinum
৩। কার্ব্বঙ্কলের রক্তদোষ ঃ- Arsenic Alb.
৪। লিঙ্গাগ্র চর্মে ও লিঙ্গমুন্ডে পূঁজভরা গোলাকার ভাসা ক্ষত, গর্ম্মী পীড়া ঃ- Arsenic Hydrogen
৫। ঘোড়ার পায়ে ক্ষত, ঘোড়ার ক্ষুরে আঘাত ঃ- Badiaga
৬। শয্যাক্ষত, পচাক্ষত ঃ- Balsamum Peru
৭। হাজা বা পাঁকুই রোগ ঃ- Balsamum Peru
৮। শয্যাক্ষত ঃ- Baptisia
৯। ঘায়ে অত্যন্ত দূর্গন্ধ, ক্ষতস্থান ঘোর লালবর্ণ, ব্যথার লেশমাত্র নাই ঃ- Baptisia
১০। মুখের মধ্যে ও গন্ডদেশে ক্ষত হইয়া ক্রমশঃ তথায় ছিদ্র হইয়া যায় ঃ- Bufo Rana
১১। ক্ষতে সাদা শ্লেষ্মার মত শ্লাফ ঃ- Cinnaberis
১২। ইঁদুরে কামড়াইয়া ক্ষত ঃ- Hypericum
১৩। কন্ডাক্টরের টিকেট পাঞ্চ করিবার মত ছোট গোলাকার ক্ষত ঃ- Kali Bichorme
১৪। পুরাতন ক্ষতচিহ্ন পুণরায় লাল হয়, পাকে, ফাটে, রক্ত পড়ে ঃ- Lachasis
১৫। সামান্য আগাত লাগিলে সেই স্থানে পাকে, ঘা হয় ঃ- Petrolium, Heper Sulph
১৬। দুই আঙ্গুলের মধ্যে ফাটা ক্ষতে এবং নখ হইতে মাংস খসিয়া যাওয়া ও পূঁজ পড়া ঃ- Euginia
১৭। নবজাত শিশুর নাভিক্ষত ঃ- Apis Mel, Abrotanum
১৮। পায়ের তলায় ও গোড়ালীর নীচে ঘা ঃ- Arsenic Alb
১৯। ক্যান্সার রোগে ক্ষত হইবার পূর্ব অবস্থায় ঃ- Hydrastis
২০। পায়ের তলায় ঘা ঃ- Lemian
২১। অস্থিরতা, অবসন্নতা, ব্যথা ও ক্ষত ঃ- Phytolacca
২২। মাথায় রক্তস্রাবী ঘা, চুল জটা বাঁধে ঃ- Vinca Minor
২৩। ঘা, ফোড়া বা কার্ব্বঙ্কল সহজে ভাল হয়না ঃ- Gun Powder 3x
২৪। নবজাত শিশুর নাভিক্ষত ঃ- Apis Mel., Abrotanum
২৫। পাকস্থলীর ক্ষতের নিমিত্ত বমি ঃ- Zirenium
২৬। পথ হাঁটিয়া পায়ের গোছে ক্ষত ঃ- Lycopodium
২৭। পথ হাঁটিয়া পায়ের তলায় ও গোড়ালীতে ক্ষত ঃ- Natrum Carb
২৮। পারদের জন্য মুখের ও জিহŸার ক্ষত ঃ- Kali Flour
২৯। স্তন্যদাত্রী প্রসুতির মুখের ক্ষত ঃ- Kali Flour
৩০। ঘোড়ার পায়ে ও ক্ষুরে ক্ষত ঃ- Badiaga
৩১। পুরাতন ক্ষত হইতে পুণরায় রক্ত পড়া ঃ- Magnetis PolioAmbo
৩২। ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ক্ষত হইতে প্রচুর রক্তস্রাব, দূর্গন্ধ ও জ্বালা ঃ- Kreosote
৩৩। পোড়া ক্ষত চিহ্ন বা ক্ষতের দাগ মিলাইবার জন্য ঃ- Cantharis এর পরে Graphities বা Petrolium
৩৪। বহুদিনের পুরাতন পোড়া ক্ষতের চিহ্নস্থানে ঘা জন্মে ঃ- Causticum
৩৫। শব ব্যবচ্ছেদকালীন ক্ষত ঃ- Crotalus
৩৬। কীটাদির দংশন জনিত বিষাক্ত ক্ষত ঃ- Crotalus
৩৭। বহুদিনের ক্ষতচিহ্ন পুনরায় পাকে ঃ- Crotalus
৩৮। রজোৎনিবৃত্ত রমণীদিগের নিম্নাঙ্গের ক্ষত ঃ- Polygonum Punctatum
৩৯। ক্ষতের উপরে কেহ লবন ছড়াইয়া দিয়াছে অনুভব ঃ- Zincum Acet

দংশন
১। ভীমরুল, বোলতা প্রভৃতি কীটাদির দংশন ঃ- Anthracenum
২। বিষাক্ত পতঙ্গাদির দংশন ঃ- Arsenic Alb
৩। বিষাক্ত সর্প দংশন ঃ- Cedron
৪। বিষাক্ত জন্তু কিংবা পতঙ্গ দংশন ঃ- Achenacea
৫। সর্পাঘাত ও মৌমাছির কামড় ঃ- Viola Odorata
৬। সর্পাঘাত ঃ- Leucus Aspera θ
৭। কুকুর কামড়াইয়া হাইড্রোফোবিয়া ঃ- Hydrophobinum
৮। পোকা মাকড়ের দংশনের কুফল ঃ- Antim Crude
৯। মাকড়াসার বিশেষ দোষ ঃ- Ledum
১০। মানুষের দংশন ঃ- Ledum
১১। খাইতে খাইতে ঠোঁট কামড়াইয়া ফেলে ঃ- Acid Ben
১২। দাঁত উঠিবার সময় শিশু যাহাকে পায় কামড়ায় ঃ- Phytolacca
সংকলক: মুহম্মদ শহীদুল হক