অ্যাসিডাম ফসফরিকাম (Acidum phosphoric)

DHMS (2nd year).
সমনামঃ অ্যাসিড ফস, অ্যাসিড ফসফরিকাম, ফসফরিক অ্যাসিড।
উপযোগিতাঃ দ্রুত বর্ধনশীল দেহ, বয়সের অনুপাতে দেহ বড়, যারা শারীরিক ও মানসিক উভয় দিক থেকেই অল্পতেই পরিশ্রান্ত হয়ে পড়ে।
কারণঃ জৈব তরল পদার্থর অপচয়, অতিরিক্ত সেক্সুয়াল, দুঃসংবাদ, শোক, বিরক্তি, প্রবাস, আঘাত, গৃহবিরহে, ভালোবাসায় অবহেলা।
ক্রিয়াস্থলঃ মন, স্নায়ু, কিডনি, পেশী, বিপাক, অন্ত্র, মূত্রগ্রন্থি, চামড়া, অস্থি, জননযন্ত্র।
বৈশিষ্ট্যঃ এ ওষুধটি এক প্রকার স্নায়বিক ক্লান্তি উৎপন্ন করে থাকে। অ্যাসিড ফসে প্রথমে মন আক্রান্ত হয় তারপর শরীর অর্থাৎ প্রথমতঃ মস্তিষ্ক তারপর পেশিগুলো আর অ্যাসিড মিউরে প্রথমতঃ পেশিগুলো তারপর মন।
সারসংক্ষেপঃ জৈব উত্তাপ ও উত্তেজনা প্রবণতার অভাব,অসাড়তা(বাহ্যিক)। ঠান্ডায়,প্রাতে,পূর্বাহ্নে ও সন্ধ্যাকালে বাড়ে। জৈব তরল পদার্থের ক্ষয়,ভয়,হতাশ প্রেম, অতিরিক্ত যৌনক্রিয়া বা হস্তমৈথুন হতে রোগ। মানসিক অবসাদ, ঔদাসীনতা, তন্দ্রাচ্ছন্ন, নির্বাক, মনোসংযোগ কষ্টকর, ভ্রান্ত বিশ্বাস। উৎকন্ঠা, উত্তেজনাপ্রবণ বা আবেগপূর্ণ, বিস্তৃতিপরায়ণ, গৃহকাতরতা ও প্রেমাতুর। নাড়ির গতি অস্বাভাবিক, দূর্বলতা/ক্লান্তি,ঘামের পর লক্ষণ বাড়ে ও আহারে অস্বীকার। দুধের মতো সাদা প্রস্রাব, ঘন ঘন প্রচুর প্রস্রাব।
অনুভূতিঃ শরীরে পিঁপড়ে চলার মতো সড়সড় করে।
বৃদ্ধিঃ জৈব তরল পদার্থের অপচয় বিশেষত শুক্রক্ষয়ে, অতিরিক্ত যৌনক্রিয়া, অতিরিক্ত ভারোত্তলন, মানসিক বিষাদে,পরিশ্রমে, কথা বললে, দুঃখে, ঠান্ডায়, সংগীতে, বায়ু প্রবাহে, স্পর্শে, বসে থাকলে, শোক-দুঃখে, রেতঃপাতে।
হ্রাসঃ উষ্ণতায়, স্বল্প নিদ্রায়, নড়াচড়ায় বা চাপে ব্যথার উপশম, আচ্ছাদনে, সান্ত্বনায়, মলত্যাগে।
প্রয়োগঃ শোকের ফলে হিস্টিরিয়া হলে প্রাথমিক অবস্থায় ইগ্নেশিয়া এবং পুরাতন অবস্থায় অ্যাসিড ফস।
ক্রিয়ানাশকঃ ক্যাম্ফর, কফিয়া, স্ট্যাফি।
উপরোক্ত লক্ষণ সাদৃশ্য যে কোন রোগেই আমরা অ্যাসিড ফস প্রয়োগ করতে পারবো।
লেখক-Dr. Moin Uddin
সূত্র-অনলাইন কালেকশন
ডা. এইচ এম আলীমুল হক, আলহক্ব হোমিও ফার্মেসী, মুক্তিস্মরণী, চিটাগাংরোড, শিমরাইল মোড়, সিদ্ধিরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ। ০১৯২০-৮৬৬ ৬১০