Antim Crud (অ্যান্টিম ক্রুড): ডা. এইচ. সি. এলেন

(২) Antim Crud (এন্টিম ক্রুড)
উৎস- সালফাইড অব এন্টিমনি
# নিজস্বকথাঃ
(১) স্থুলদেহ এবং জিহ্বার উপর সাদা পুরু লেপ।
(২) আহারে অরুচি এবং আহারের পর বমি।
(৩) বিরক্তি, বিষন্নতা, ক্রোধ ও ক্রন্দন।
(৪) গোসল সহ্য হয় না। গোসলে ভয়।
# মূলকথাঃ
(১) অতিরিক্ত খিটখিটে ও খুঁতখুঁতে মেজাজ ও সে সঙ্গে জিহŸায় দুধের সরের মতো সাদা বা হলদে ময়লা এন্টিম ক্রডের প্রধানতম লক্ষণ।
(২) জীবনের প্রতি বিতৃষ্ণা।
(৩) গুরুপাক দ্রব্য অতি ভোজনের ফলে পাকস্থলীর অসুস্থতা।
(৪) বমিভাব, আহারে অনিচ্ছা কিন্তু টক খাওয়ার প্রবল ইচ্ছা।
(৫) পর্যায়ক্রমে উদরাময় ও কোষ্ঠবদ্ধতা।
#মানসিক লক্ষণ ঃ
* অত্যন্ত বিষণœভাব সাথে কাঁদতে থাকে। জীবনে বিতৃষ্ণা। উদ্বিগ্নতা, কাঁদো কাঁদো ভাব। সামান্যতেই অভিভূত (পালস), ভীষন নিরাশভাব- পানিতে ডুবে মরতে চায়।
* পদ্যের আকারে কথা বলতে ও আবৃত্তি করে বলতে চায়। চাঁদের আলোয় ভাবাবেগ ও ফূর্তিভরা প্রেমভাব জাগে। প্রেমে হতাশা ও তার কুফলে (ক্যাল্কে-ফস) প্রযোজ্য।
#উপযোগিতা ঃ
যে সব শিশু ও যুবক-যুবতী মোটা হতে থাকে (ক্যাল্কে-কার্ব); যাদের জীবনীশক্তি নিঃশেষিত তাদের ক্ষেত্রে উপযোগী।
* সূর্যের তাপ সহ্য হয় না, রৌদ্রে অতিরিক্ত পরিশ্রমে রোগলক্ষণ বৃদ্ধি (ল্যাকে, নেট্রা-মি); আগুনের সামনে থেকে শরীর গরম হয়ে বৃদ্ধি, গরম আবহাওয়ায় অবসন্ন হয়ে পড়ে বা রোদ লেগে অসুখ হলে প্রযোজ্য।
* ঠান্ডায় অত্যনুভুতি; ঠান্ডা লেগে রোগলক্ষণ বৃদ্ধি। ঠান্ডা পানিতে গোছল করতে চায় না; ঠান্ডা পানিতে গোছলে বা শরীর ধৌত করলে শিশু কাঁদতে থাকে।
#শিশু ঃ
যে সব শিশু অত্যন্ত খিটখিটে ও রাগী, ছোঁয়া লাগা বা তার দিকে তাকালে সহ্য করতে পারে না; গোমড়া মুখ; কারো সাথে কথা বলতে চায় না বা কেউ তার সাথে কথা বলে তাও চায় না (এ-টার্ট, আওডি, সাইলি)। আদর করলেও চটে যায়।
#শিরঃপীড়া ঃ
* নদীতে গোছলের পরে; ঠান্ডা লেগে; মদ বা এলকোহল খেলে, টক খেয়ে, ফল খেয়ে, চর্বিযুক্ত দ্রব্য খেয়ে, হজম না হলে, উদ্ভেদ চাপা পড়ে শিরঃপীড়া হলে প্রযোজ্য।
* ঠান্ডা পানিতে গোছলে ভীষণ শিরঃপীড়া দেখা দেয়- ঋতুস্রাব বন্ধ হয়।
#পাকাশয় ঃ
* হজমশক্তি দূর্বল, সামান্যতেই হজমের গোলমাল থাকে। জিহŸার উপর পুরু দুধের মত সাদা লেপ- এ ঔষধের সবচেয়ে মূল্যবান লক্ষণ। মুখে জাড়ি ঘা হওয়ার প্রবণতা (আর্জে-নাই, সালফার)। টক ও চাটনি খেতে চায়।
* রুটি ও পিঠা খেলে পাকাশয় ও অন্ত্রের গোলমাল বিশেষকরে টক ও পচা মদ খেলে। অজীর্ন ভূক্তদ্রব্যের উদগার। গরমকালে বহুবছর ধরে নীচে উপরে বায়ূনিঃসরণ।
* যাদের খুব ভোরে উদরাময় হয়; হঠাৎ কোষ্ঠবন্ধতা আসে বা পর্যায়ক্রমে উদরাময় ও কোষ্ঠবন্ধতা হয়, যাদের নাড়ী দৃঢ় ও দ্রæত তাদের ক্ষেত্রে উপযোগী।
#সর্দি-কাশি, শ্লেষ্মা ঃ
* খকখক করে কাশলে প্রচুর শ্লেষ্মা, নাকের পিছনদিক হতে শ্লেষ্মা আসে, মলদ্বার দিয়ে শ্লেষ্মা বের হয়- ঐ শ্লেষ্মা ক্ষতকর, চুইয়ে চুইয়ে পড়ে, কাপরে হলদে দাগ লাগে। অর্শ- শ্লেষ্মাস্রাবী।
* পানিতে সাঁতার কাটলে বা গোছলে যদি সর্দি-কাশি লাগে (রাসটক্স)।
* শরীর অত্যন্ত গরম হয়ে গলা বসে যায়।
* রোদে বা গরম ঘরে শরীর অত্যন্ত গরম হয়ে হুপিং-কাশি।
#চর্মপীড়া ঃ
* চামড়ার অস্বাভাবিক মাংস হওয়ার প্রবণাতা, আঙুলের নখ শীঘ্র বাড়ে না, থেৎলান নখে আঁচিলের মত ফাটা হয়ে শিঙের মত বাড়তে থাকে।
* পায়ের তলায় শিঙের মত কাটাযুক্ত বড় বড় কড়া (র‌্যানান-বা)। হাঁটলে ভীষণ যন্ত্রণা বিশেষ করে পাথর দেয়া রাস্তায়।
# বৃদ্ধি ঃ খাবারের পরে, টক বা টক খাবার খেলে, ঠান্ডা পানিতে গোছলে, সূর্যতাপে বা আগুনে শরীর গরম হলে, বেশি ঠান্ডা বা বেশি গরমে।
# উপশম ঃ খোলা বাতাসে, বিশ্রাম করলে, গরম পানিতে গোছলে।
# শক্তি- ৬, ৩০, ২০০
সূত্র- এলেন কিনোটস অব মেটিরিয়া মেডিকা
-ডা. এইচ এম আলীমুল হক, আলহক্ব হোমিও ফার্মেসী, মুক্তিস্মরণী, চিটাগাংরোড, শিমরাইল মোড়, সিদ্ধিরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ। ০১৯২০-৮৬৬ ৬১০