(4) Ferrum Phos (ফেরাম ফস )

♣ সমনামঃ ফেরিক ফসফেট, ফেরি ফসকাম, ফসফেট অব আয়রন।
♣ মায়াজমঃ সোরিক, সাইকোটিক, টিউবারকুলার।
♣ সাইডঃ ডানপাশ।
♣ কাতরতাঃ শীতকাতর।
♣ উপযোগিতাঃ শ্লেষ্মা ও রসপ্রধান ধাতুতে প্রযোজ্য। ফেরাম ফসের রোগী রক্তাধিক্যযুক্ত ও বলবান নয়, সে দুর্বল স্নায়ুবিক প্রকৃতির, রক্তশূন্য কিন্তু মাঝে মাঝে রক্তোচ্ছ্বাস দেখা দিয়ে রক্তিমাভ হয়ে ওঠে।
♣ ক্রিয়াস্থলঃ রক্ত, শিরা, রক্ত সঞ্চালন, হৃদপিণ্ড, ফুসফুস, কান, মস্তিক, স্নায়ু, শ্লৈষ্মিক, ঝিল্লি, অস্হি।
♣ বৈশিষ্ট্যঃ ফেরাম ফস সম্পর্কে ডা. সুসলারের নিজের লেখা সর্বশেষ এডিশন থেকে এল. এইচ ট্যাফেলের অনুবাদ নিম্নরূপ : “লোহা এবং এর সল্টসে অক্সিজেন আকর্ষণের ধর্ম বয়ে রক্তকণিকার মধ্যকার লৌহ শ্বাসগ্রহণের বাতাস থেকে অক্সিজেন সংগ্রহ করে, অতঃপর সারা শরীরের টিস্যুতে অক্সিজেন সরবরাহ করে। সালফার রক্তকণিকা ও অন্যান্য কোষের মাঝে সালফেট অব পটাশ আকারে বিদ্যমান থাকে, তা অক্সিজেন সরবরাহ সহায়তা করে বিভিন্ন কোষে যেখানে রয়েছে লোহা ও সালফেট অব পটাশ।
♣ ফিজিওলজিক্যাল কাজঃ এ ওষুধে আইরন বা লোহা ও ফসফরাস এ দুটো উপাদান রয়েছে। এতে লোহা থাকায়, লোহার সাথে সামঞ্জস্য রেখে ফেরাম ফসে স্হানিক রক্ত সঞ্চয়ের প্রবণতা পরিলক্ষিত হয়, ও অপর উপাদান ফসফরাসেরর মতো একে ফুসফুস ও পাকস্হীর সাথে সম্বন্ধযুক্ত হতেও দেখা যায়। তাছাড়া এ দুটো উপাদানের মিলনের ফলে একে রক্ত স্রাবের শ্রেষ্ঠ ওষুধ হিসেবে কাজ করতে দেখা গেছে।
♣ সারসংক্ষেপঃ শ্লেষ্মা ও রসপ্রধান ধাতু, রোগী দুর্বল স্নায়বিক প্রকৃতির, রক্তশূন্য কিন্তু মাঝে মাঝে রক্তোচ্ছ্বাস দেখা দিয়ে রক্তিমাভ হয়ে ওঠে। শয্যা কঠিন মনে হওয়ার অনুভূতি। প্রাতে, সন্ধাকালে, রাতে, নড়াচড়ায়, স্পর্শে, ডান পাশে, উত্তাপে ও গোলমালে বাড়ে। রক্তস্রাবে, স্হির হয়ে থাকলে, ঠাণ্ডা প্রয়োগে ও বিশ্রামে কমে। বাচালতা ও প্রফুল্লতা, বিষণ্নতা, শারীরিক ও মানসিক অবসাদ, বিস্তৃতিপরায়ণ, তন্দ্রাচ্ছন্নভাব, উৎকণ্ঠা ও ভয়। নাড়ির গতি অস্বাভাবিক : অতিশয় দ্রুত গতি। প্রাদাহিক পীড়ার প্রথমাবস্হা। বেদনা হঠাৎ আসে হঠাৎ যায় এবং ভ্রমণশীল বেদনা।
♣ অনুভূতিঃ শয্যা কঠিন মনে হওয়ার অনুভুতি।
< বৃদ্ধিঃ প্রাতে, সন্ধাকালে, রাতে, নড়াচড়ায়, স্পর্শে, ডানপাশে, উত্তাপে, উত্তেজনায়, চাপে, বাইরের খোলা বাতাসে, আহারের সময়ে ও পরে, টক খাদ্যে, ঘাম চাপা পড়ে, ঠাণ্ডা পানীয়ে, মাংসে, কফি, চা বা কেক খেলে, ভোর ৪ টা থেকে ৬টায়, ধাক্কা লাগলে, গরম পানীয়ে, গোলমালে।
> হ্রাসঃ ধীরে ধীরে বেড়ালে, স্হির হয়ে থাকলে, রক্তস্রাবে, ঠাণ্ডা বাতাসে, ঠাণ্ডা প্রয়োগে, ভেজা হাওয়া, ঠাণ্ডা পানীয়ে, বিশ্রামে ।
♣ কারণঃ গ্রীষ্মকালের উষ্ণদিবসে, ঘাম অবরুদ্ধতা থেকে, যান্ত্রিক আঘাতে, অতিরিক্ত সূর্যোত্তাপ ও ঠাণ্ডায়।
♣ ইচ্ছাঃ উত্তেজক খাবার পছন্দ।
♣ অনিচ্ছাঃ মাংস ও দুধে অনীহা।
♣ শত্রুভাবাপন্নঃ প্যারিস।
♣ ক্রিয়ানাশকঃ স্ট্রোন্টিয়াম ব্রোমেটাম।
♣ প্রয়োগঃ রাতে প্রয়োগ নিষিদ্ধ।

= উপরোক্ত লক্ষণ সাদৃশ্যে যে কোন রোগেই আমরা ফেরাম-ফস প্রয়োগ করতে পারবো।